SLIDER

Navigation-Menus (Do Not Edit Here!)

জেনে নিন আল্লাহকে ডাকার বৈজ্ঞানিক উপকারীতা

নেদারল্যান্ডের মনোবিজ্ঞানী ভ্যান্ডার হ্যাভেন পবিএ কোরাআন অধ্য্যন ও বারবার ‘আল্লাহ’ শব্দটি উচ্চারণ রোগী ও স্বাভাবিক মানুষের ওপর তার প্রভাব সম্পর্কিত একটি নয়া আবিস্কারের কথা ঘোষণা করেছেন। ওলন্দাজ এই অধ্যাপক বহু রোগীর ওপর দীর্ঘ তিন বছর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েও অনেক গবেষণার পর এই আবিস্কারের কথা ঘোষণা করেন।

 যেসব রোগীর ওপর তিনি সমিক্ষা চালান তাদের মধ্যে অনেক অমুসলিমও ছিলেন, যারা আরবি জানেন না। তাদের পরিস্কার ভাবে “আল্লাহ” শব্দটি উচ্চারণ করার প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এই প্রশিক্ষণের ফল ছিল বিস্ম্যকর, বিশেষ করে যারা বিষন্নতা ও মানসিক উত্তেজনায় ভুগছিলেন তাদের ক্ষেত্রে। সৌদিআরব থেকে প্রকাশিত দৈনিক আল-ওয়াতান পত্রিকা হ্যাভেনের নাম দিয়ে জানায়, জানা মুসলমানরা যারা নিয়মিত কোরান তিলাওয়াত করেন তারা মানসিক রোগ থেকে রক্ষা পেতে পারেন। ‘আল্লাহ’ কথাটি কিভাবে মানসিক রোগ নিরাময়ে সাহায্য করে তার ব্যাখ্যাও তিনি দিয়েছেন। তিনি তার গবেষণা কর্মে উল্লেখ করেন, ‘আল্লাহ’ শব্দটির প্রথম বর্ণ আলিফ আমাদের শবাসযন্ত্র থেকে আসে বিধায় তা শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ করে। তিনি আরও বলেন, লাম বর্ণটি উচ্চারণ করতে গেলে জিহবা উপরের মাঢ়ী সামান্য স্পর্শ করে একটি ছোট বিরতি সৃষ্টি করে এবং তারপর একই বিরতি দিয়ে এটাকে বারবার উচ্চারণ করতে থাকলে আমাদের শ্বাসযন্ত্রে একটা সবস্তিবোধ হতে থেকে। শেষ বর্ণে হা-এর উচ্চারণ আমাদের ফুসফুস ও হ্রদযন্ত্রের মধ্যে একটা যোগসুত্র সৃষ্টি করে তা আমাদের হ্রদযন্ত্রের স্পন্দনকে নিয়ন্ত্রণ করে।

Pages