SLIDER

Navigation-Menus (Do Not Edit Here!)

বুকের দুধ চেপে রাখুন

অনেক সময় মা বাচ্চা কে রেখে বাইরে যান। এসময় বাচ্চা কে যদি দুধ খাওয়ানোর প্রয়োজন পড়ে তখন কার জন্য বুকের দুধ চেপে রাখুন। বুকের দুধ চেপে রাখার কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে।

মায়ের বুকের দুধ চেপে রাখলে পরবর্তীতে তা বাচ্চাকে খাওয়ানো যায়।
আপনি বুকের দুধ চেপে রাখতে পারেন যদি কখনও কোন কাজে আপনার বাচ্চাকে ছেড়ে দূরে যেতে হয়। হতে পারে আপনার বাচ্চাটি প্রিম্যাচার বা অসুস্থ, অথবা হতে পারে আপনি কাজে যাবেন। যদি আপনার মনে হয় যে স্তন দুধে ভরে আছে অথবা বাচ্চা ঠিকমতন দুধ টেনে নিচ্ছে না কিন্তু আপনার বুকে দুধ আসছে তাহলে আপনি দুধ চেপে রাখতে পারেন।

বুকের দুধ কিভাবে চাপবো?

দুধ চেপে রাখতে পারেন হাত দিয়ে অথবা ব্রেস্ট পাম্প ব্যবহার করতে পারেন। বিভিন্ন নারীর জন্য বিভিন্ন ধরনের পাম্প উপযুক্ত, তাই কেনার আগে অন্যদের জিজ্ঞেস করে দেখুন অথবা পরখ করে নিন। ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই নিশ্চিত হোন পাম্প এবং পাত্রটি ভালভাবে ফুটানো হয়েছে।
হাত দিয়ে বুকের দুধ চাপা
অনেকের ক্ষেত্রে হাতে চাপাই স্বাভাবিক মনে হতে পারে। এরকম হলে আর পাম্প কেনার প্রয়োজন নেই।
হাতে দুধ চেপে রাখার জন্য কিছু টিপস এখানে দেয়া হল:
  • শুরুতেই হাত ভাল করে গরম পানি আর সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এবার স্তনে হালকা ম্যাসাজ করুন।
  • হাত দিয়ে স্তনের বোঁটার পেছনে গোল করে ধরুন।
ইংরেজি C এর মতন করে বৃদ্ধাঙ্গুলি আর তর্জনীর মাঝে কোমলভাবে চাপুন (উপরের দৃশ্য অনুযায়ী)। এতে ব্যাথা পাবার কথা নয় (বোঁটার ওপর চাপলে ব্যাথা হয়ে যাবে আর দুধ বের করতে পারবেন না) এই পৃষ্ঠার শেষের ভিডিওটিতে দেখুন।
  • চাপ ছেড়ে দিয়ে আবার পুনরায় আরম্ভ করুন। খেয়াল রাখবেন যেন আঙ্গুল পিছলে না যায়। প্রথম প্রথম শুধু কয়েক ফোটা দেখা যেতে পারে, তখন বন্ধ করলে হবে না। এভাবেই ধীরে ধীরে আপনার দুধ চলে আসবে। ধীরে ধীরে অভ্যাস করলে ব্যাপারটা আরও সহজ হয়ে যাবে।
  • যদি এক ফোঁটাও বের না হয় তাহলে হাতের স্থান পরিবর্তন করে আবারও চেষ্টা করুন।
  • যখন দুধ বের হওয়া কমে আসবে তখন অন্য স্তনে চাপা শুরু করুন। সবটুকু দুধ বের হওয়া পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে দুটি স্তন চাপতে থাকুন।
  • দুধ ঠিকমতন বের না হলে স্তনে হালকা মাসাজ করুন।
  • স্তনের নিচে একটি পরিষ্কার পাত্রে দুধ ধারণ করুন।
বুকের দুধ কাপে খাওয়ানো
কখনও বাচ্চার বেশি খেতে হতে পারে অথবা বুক থেকে ঠিকমতন দুধ টানতে না পারতে পারে। এমন হলে আপনার ডাক্তার আপনাকে কাপে করে বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর পরামর্শ দিতে পারে। এজন্যে অবশ্যই একজন ডাক্তার অথবা দক্ষ নার্সের তত্ত্বাবধানে বাচ্চাকে খাওয়াতে হবে যতক্ষন না আপনি নিজে দক্ষ হয়ে ওঠেন। কেননা এভাবে খাওয়ানোর সময় অনিয়ম হলে বাচ্চার গলায় খাবার আটকে যেতে পারে।
বুকের দুধ ধরে রাখা
পরিষ্কার পাত্রে দুধ ধরে রাখতে পারেনঃ
  • ফ্রিজে ৪°সে বা তার কম তাপমাত্রায় ৫ দিন পর্যন্ত।
  • ফ্রিজের আইস-ক্রিম রাখার জায়গায় ২ সপ্তাহ পর্যন্ত।
  • ফ্রিজার (যাতে -১৮°সে বা কম তাপমাত্রা থাকে) এ রাখলে ৬ মাস পর্যন্ত।
মায়ের দুধ অবশ্যই পরিষ্কার পাত্রে (ভালভাবে ফুটানো) রাখতে হবে। যদি পাম্প ব্যবহার করেন তবে তাও ব্যবহারের আগে এবং পরে ভাল করে ধুতে হবে।
ফ্রিজে বরফ হয়ে জমে থাকা বুকের দুধ কিভাবে গরম করব?
যদি দুধ ফ্রিজে থেকে জমে যায় তবে প্রথমে ডিপ থেকে নরমাল ফ্রিজে রাখুন। এবার গরম করে বাচ্চাকে সাথে সাথে খেতে দিন। একবার গরম করা দুধ পুনরায় ফ্রিজে রাখবেন না।
বুকের দুধ গরম করা
বাচ্চা যদি ঠান্ডা খেতেই চায় তবে ফ্রিজের দুধ গরম না করেই বাচ্চাকে দিতে পারেন। অথবা দুধকে কুসুম গরম পানির মধ্যে বোতলে করে গরম করতে পারেন। মাইক্রোওয়েভ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন কেননা এতে মাঝের অংশ বেশী গরম হয় আর এর কারনে বাচ্চার মুখ পুড়ে যেতে পারে।
বাচ্চা যদি থাকে হাসপাতালে

আপনি যদি আপনার অসুস্থ বাচ্চার জন্যে বুকের দুধ চেপে থাকেন তবে হাসপাতালে বাচ্চার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন কিভাবে দুধ সংরক্ষন করবেন। 

Pages